পদ্মা সেতুর দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ কত

হ্যালো বন্ধুরা, কেমন আছেন সবাই? আশা করি সকলেই খুব ভালো আছেন। আপনারা অনেকেই পদ্মা সেতুর দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ কত সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন। আজকে আমি আপনাদেরকে পদ্মা সেতুর দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ কত সম্পর্কে বলবো। তো চলুন শুরু করা যাক।

পদ্মা সেতুর দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ কত

পদ্মা সেতুর দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ কত
পদ্মা সেতুর দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ কত

 

 

পদ্মা সেতুর দৈর্ঘ্য ৬.১৫ কিলোমিটার (২০,১৮০ ফুট) এবং প্রস্থ ১৮.১৮ মিটার (৫৯.৬৫ ফুট)।

বিস্তারিত:

  • মোট স্প্যান: ৪১ টি
  • সর্বোচ্চ স্প্যান: ১৫০ মিটার
  • নদীর তলদেশ থেকে সেতুর উচ্চতা: ১২.১ মিটার
  • সেতুর উপর যানবাহনের চলাচলের জন্য লেন: ৪ টি (দুই দিকে দুই টি)
  • সেতুর উপরে রেললাইন: ১ টি (দুই দিকে এক টি)
  • পদ্মা নদীর তীরে সংযোগকারী রাস্তা:
    • মাওয়া প্রান্তে: ৭.৩ কিলোমিটার
    • জাজিরা প্রান্তে: ৬.৫ কিলোমিটার

পদ্মা সেতুর মোট দৈর্ঘ্য কত?

পদ্মা সেতুর মোট দৈর্ঘ্য ৬.১৫ কিলোমিটার (২০,১৮০ ফুট)।

এই দৈর্ঘ্যের মধ্যে:

  • সেতুর অংশ: ৬.০৭ কিলোমিটার
  • সংযোগ সড়ক: ০.০৮ কিলোমিটার

পদ্মা সেতুর খরচ কত বিলিয়ন

পদ্মা সেতুর মোট খরচ ৩২ হাজার ৬০৫ কোটি টাকা

আরো পড়ুনঃ  বাংলাদেশ কোন মহাদেশে অবস্থিত

এই খরচের মধ্যে রয়েছে:

  • মূল সেতু: ১৩ হাজার ৬৫৮ কোটি টাকা
  • নদী শাসন: ৬ হাজার ৫৪০ কোটি টাকা

সংযোগ সড়ক: ৪ হাজার ৭০৭ কোটি টাকা

ভূমি অধিগ্রহণ: ৩ হাজার ৪৯০ কোটি টাকা

পুনর্বাসন: ২ হাজার ৪৭০ কোটি টাকা

পরিবেশ: ৪০০ কোটি টাকা

সুদ: ১ হাজার ৩৪০ কোটি টাকা

পদ্মা সেতুর পিলার ও স্প্যান সংখ্যা:

পিলার সংখ্যা: ৪২টি

  • স্প্যান সংখ্যা: ৪১টি

স্প্যানের দৈর্ঘ্য:

  • সর্বোচ্চ: ১৫০ মিটার
  • সর্বনিম্ন: ৮০ মিটার

পদ্মা সেতু কত তারিখে উদ্বোধন করা হয় এবং এর দৈর্ঘ্য

পদ্মা সেতু ২০২২ সালের ২৫শে জুন উদ্বোধন করা হয়। এর দৈর্ঘ্য ৬.১৫ কিলোমিটার (২০,১৮০ ফুট)।

পদ্মা সেতু বিশ্বের কততম সেতু

পদ্মা সেতু বিশ্বের কততম সেতু তা নির্ভর করে কোন মানদণ্ড ব্যবহার করা হচ্ছে তার উপর।

  • মোট দৈর্ঘ্যের দিক থেকে পদ্মা সেতু বিশ্বের ১২২তম স্থানে।
  • নদীর উপর নির্মিত সেতু হিসেবে পদ্মা সেতু বিশ্বের ২৫তম স্থানে।
  • দক্ষিণ এশিয়ার দীর্ঘতম সেতু হিসেবে পদ্মা সেতু প্রথম স্থানে।

পদ্মা সেতু সম্পর্কে সাধারণ জ্ঞান

পদ্মা সেতু সম্পর্কে সাধারণ জ্ঞান
পদ্মা সেতু সম্পর্কে সাধারণ জ্ঞান

অবস্থান: মুন্সিগঞ্জের মাওয়া এবং শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলায় অবস্থিত।

উদ্বোধন: ২০২২ সালের ২৫শে জুন।

দৈর্ঘ্য: ৬.১৫ কিলোমিটার (২০,১৮০ ফুট)।

প্রস্থ: ১৮.১০ মিটার।

পিলার সংখ্যা: ৪২টি।

স্প্যান সংখ্যা: ৪১টি।

সর্বোচ্চ স্প্যান: ১৫০ মিটার।

সর্বনিম্ন স্প্যান: ৮০ মিটার।

নদীর গভীরতা: ১২৮ মিটার।

খরচ: ৩২ হাজার ৬০৫ কোটি টাকা।

আরো পড়ুনঃ  ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবস বক্তব্য

বৈশিষ্ট্য:

  • দ্বিতল বিশিষ্ট কংক্রিট এবং স্টিল দিয়ে নির্মিত সেতু।
  • উপরের তলায় রেলপথ এবং নিচের তলায় সড়কপথ।
  • রেলপথে দুটি লাইন এবং সড়কপথে চারটি লেন।
  • বিশ্বের গভীরতম পাইলের সেতু।
  • দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সাথে ঢাকার সরাসরি যোগাযোগ স্থাপন করেছে।
  • দেশের অর্থনীতি ও যোগাযোগ ব্যবস্থায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।

পদ্মা সেতু রেল সংযোগ ঢাকা থেকে কোথায়?

পদ্মা সেতু রেল সংযোগ ঢাকা থেকে মাওয়া, মুন্সিগঞ্জ পর্যন্ত চলে। এটি 6.15 কিলোমিটার দীর্ঘ সেতু যা যমুনা নদী অতিক্রম করে এবং ঢাকাকে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সাথে সংযুক্ত করে। রেল সংযোগটি একক ট্র্যাক এবং এটিতে সর্বোচ্চ গতি 100 কিলোমিটার প্রতি ঘন্টা।

পদ্মা সেতু রেল সংযোগটি 2022 সালে চালু করা হয়েছিল এবং এটি বাংলাদেশের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামোগত প্রকল্প। এটি দেশের দুটি অংশের মধ্যে ভ্রমণের সময় এবং খরচ কমিয়েছে এবং এটি বাংলাদেশের অর্থনীতিতে বৃদ্ধি করার আশা করা হচ্ছে।

পদ্মা সেতু দিয়ে ট্রেন কোথায় কোথায় যাবে?

পদ্মা সেতু দিয়ে ট্রেন কোথায় কোথায় যাবে
পদ্মা সেতু দিয়ে ট্রেন কোথায় কোথায় যাবে

বর্তমানে, পদ্মা সেতু দিয়ে তিনটি ট্রেন চলাচল করছে:

  • সুন্দরবন এক্সপ্রেস: ঢাকা থেকে খুলনা
  • বেনাপোল এক্সপ্রেস: ঢাকা থেকে বেনাপোল
  • মধুমতি এক্সপ্রেস: ঢাকা থেকে রাজশাহী

এই ট্রেনগুলি নিম্নলিখিত স্টেশনগুলিতে থামে:

  • ঢাকা
  • ভাঙ্গা
  • রাজবাড়ী
  • কুষ্টিয়া
  • যশোর
  • খুলনা
  • বেনাপোল
  • ঈশ্বরদী
  • পাকশী
  • রাজশাহী

ভবিষ্যতে, আরও ট্রেন পদ্মা সেতু দিয়ে চলাচল করবে বলে আশা করা হচ্ছে। এর মধ্যে রয়েছে:

  • ঢাকা থেকে সিলেট
  • ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম
  • ঢাকা থেকে বরিশাল
আরো পড়ুনঃ  শিক্ষাক্ষেত্রে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ৫টি ব্যবহার

পদ্মা সেতু

ভূমিকা:

পদ্মা সেতু কেবল একটি সেতু নয়, এটি বাংলাদেশের স্বপ্ন, আশা, এবং অদম্য স্পৃহার প্রতীক। পদ্মা নদীর বুকে নির্মিত এই ৬.১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ সেতু বাংলাদেশের দীর্ঘতম সেতু এবং বিশ্বের গভীরতম পাইলের সেতু।

নির্মাণ:

২০০১ সালে প্রথম পদ্মা সেতু নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়। দীর্ঘ ১৪ বছর ধরে নির্মাণকাজ চলার পর ২০১৭ সালে সেতুর সকল স্প্যান স্থাপন করা হয় এবং ২০২২ সালের ২৫শে জুন সেতুটি উদ্বোধন করা হয়।

বৈশিষ্ট্য:

  • দ্বিতল বিশিষ্ট সেতু: উপরে রেলপথ এবং নিচে সড়কপথ
  • ৪২ টি পিলার এবং ৪১ টি স্প্যান
  • সর্বোচ্চ স্প্যান: ১৫০ মিটার
  • সর্বনিম্ন স্প্যান: ৮০ মিটার
  • নদীর গভীরতা: ১২৮ মিটার
  • খরচ: ৩২ হাজার ৬০৫ কোটি টাকা

গুরুত্ব:

  • দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সাথে ঢাকার সরাসরি যোগাযোগ স্থাপন
  • যাতায়াত ব্যবস্থার উন্নয়ন: যানবাহন ও ট্রেন চলাচলের মাধ্যমে দ্রুত যাতায়াত
  • অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি: দক্ষিণাঞ্চলের কৃষি, শিল্প, ও ব্যবসার প্রসার
  • পর্যটন শিল্পের উন্নয়ন
  • জাতীয় ঐক্য ও সংহতির প্রতীক

উপসংহার:

পদ্মা সেতু কেবল একটি যানবাহন চলাচলের মাধ্যম নয়, এটি বাংলাদেশের অগ্রগতি ও সমৃদ্ধির প্রতীক। এই সেতু বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি যুগান্তকারী ঘটনা এবং বাংলাদেশের উন্নয়নের এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা।

পদ্মা সেতুর নকশা করেন কোন কোম্পানি

পদ্মা সেতুর নকশা করেছে এক্সপার্ট কনসালটেন্সি অ্যাসোসিয়েশন (এসিওএম) নামক একটি মার্কিন কোম্পানি।

তবে, এসিওএম ছাড়াও আরও ৪টি কোম্পানি নকশা প্রণয়নে সহায়তা করেছিল। সেগুলো হলো:

  • ডিইল (ডেনমার্ক)
  • এসএনসি লাভালিন (কানাডা)
  • ওয়াইএইচ (ওয়াইয়া হোয়াই) (দক্ষিণ কোরিয়া)
  • মেনার্ড (ফ্রান্স)

এই ৫টি কোম্পানি একসাথে পদ্মা সেতু নকশা কনসোর্টিয়াম গঠন করে।

মনে রাখবেন:

  • চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি লিমিটেড (এমবিইসি) পদ্মা সেতুর নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান।
  • বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ পদ্মা সেতুর মালিক ও পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠান।

পরিশেষে

আমি আশা করছি আপনারা আপনাদের পদ্মা সেতুর দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ কত এই প্রশ্নের উওর পেয়েছেন। আরো কিছু জানার থাকলে নিচে কমেন্ট করুন। ধন্যবাদ।
আরো পড়ুনঃ কোন দেশের টাকার মান কত

Leave a Comment